They gave Golam Azam the citizenship of Bangladesh, they canceled the citizenship of Taslima Nasrin

Question

1993.

Freedom fighters cried.

Many of them were neglected in the society, marked as stupid old men who always talk about country, they were the poorest among the poor, they were wounded badly in 1971, many of them were lame. They still are. But they were proud of themselves. Because they were the persons who built this country.

They lost their pride.

Golam Azam, the leader of Razakars, the corroborates of Paki armies, was said to be a citizen of Bangladesh by High court, since he took born here.

In 1971, this Golam Azam said- জয় বাংলা (Victory of Bengal) is opposing Islam and Pakistan. Bengalis were never a nation.




He signed on a one taka note which was used to collect the fund for Razakars and Pakistani armies.Those Paki armies raped and killed women, killed the children, the young boys, and the people from all classes of age and sex.

The job of the Razakars was to help them to kill and rape. They informed Pakis where a beutiful girl livd so that they could rape her, they informed them where the young boys were so that they could kill them.

They were all united to kill Bengalis under the Mashreki (undivided) Pakistan.

Here is a list of Razakars-

A. Members of the Central Peace Committee
1. Khwaja Khairuddin, Leader of the Pakistan Muslim League.
2. AGM Shafiqul Islam Advocate, Lahore High Court. Runs business in Bangladesh.
3. Golam Azam Former Ameer of Jamaat-e-Islami. Retired last year conferring party leadership to his worthy associate Nizami, head of death squad in 1971.
4. Moulana Syed Mohammad Leading member of the central Majlis of the Bangladesh Ittehadul Ummah.
5. Mahmud Ali state minister for social welfare, government of Pakistan.
6. MAK Rafiqul Islam No information.
7. Abdul Jabbar Khaddar Deceased.
8. Yusuf Ali Chowdhury (Mohan Miah) Had a natural death during the liberation war.
9. Abul Kashem Had a natural death after liberation.
10. Gulam Sarwar: Leader of the Jamaati organization in London, the Dawatul Islam; Director of the London based Islamic institute.
11. Syed Azizul Huq (Nanna Miah)Leader of the Jatiyo Party, and member of Parliament.
12. ASM Solaiman: Chairman, Bangladesh Krishak Sramik Party.
13. Peer Mohsenuddin (Dudu Miah)Vice Chairman, Bangladesh Democratic League
14. Sharq Rahman: Chairman, Islamic Democratic League
15. Major (Rtd) Afsaruddin:Convener, Bangladesh Ganatantra
Bastabayan Parishad; Chairman, National Democratic Party; former presidential candidate.
16. Syed Mohsin Ali:Industrialist; former Chairman Stock
Exchange; former Director, IFIC bank.
17. Fazlul Huq Chowdhury: Had a natural death after liberation
18. Mohd. Sirajuddin: Industrialist; Chairman of the Dhaka City
Muslim League.
19. AT Sadi: Retired advocate of Bangladesh Supreme Court
20. Ataul Huq Khan: Vice Chairman, Bangladesh Muslim
League.
21. Maqbulur Rahman: Businessman.
22. Mohammad Aqil: Acting Chairman, Bangladesh Nezam e Islam.
23. Principal Ruhul Quddus: Member of the central working
committee, Jamaat e Islam.
24. Nuruzzaman: Industrialist; Director Islamic Development
bank.
25. Moulana Miah Mafizul Huq: Member, central Majlis, Bangladesh Ittehadul Ummah.
26. Abu Salek: Senior Advocate, Bangladesh Supreme
Court.
27. Abdun Naim Had a natural death after liberation
28. Moulana Siddique Ahmed:Member, central Majlis, Bangladesh Ittehadul Ummah.
29. Abdul Matin:Secretary general, Bangladesh Muslim League.
30. Barrister Akhtaruddin Ahmed Resident in Saudi Arabia
Adviser Saudi International Law
31. Toaha Bin Habib Industrialist; member, Central Majlis e Shura, Bangladesh Khelafat Andolan.
32. Irtezaur Rahman Akhunzada: Deceased
33. Raja Tridev Roy A Pakistani citizen. Runs business at Karachi.
34. Faiz Bakhsh Chairman, Bangladesh Muslim League

B. Leaders of the Central Peace and Welfare Council
1. Moulana Farid Ahmed Disappeared immediately after liberation.
2. Nuruzzaman Former director Imam Training Course, Islamic
Foundation.
3. Moulana Abdul Mahnan Former Minister for Religious Affairs.
4. Julmat Ali Khan Vice Chairman, BNP
5. AKM Mujibul Huq Industrialist.
6. Firoz Ahmed No information.


C. Members of the Malek Cabinet
1. Abul Kashem Deceased
2. Nawazish Ahmed Chairman, Bangladesh Muslim League.

D. The Central Committee of the Islami Chhatra Sangha (The Al-Badr High Command)
1. Matiur Rahman Nizami, (All-Pakistan Chief)
Assistant General Secretary, Jamaat-e-Islami.
2. Ali Ahsan Mohd Mujahid(East Pakistan Chief); Ameer of Dhaka City, Jamat-e-Islami; Manager of the Weekly Sonar Bangla.
3. Mir Kasem Ali: (He was at first head of the Chittagong district, then was ranked third in the line of command of Al-Badr); Deputy Amecr of Dhaka City Jamaat-e-Islami; Manager, Rabet-e-Alam (Bangladesh); Member (Administration) Ibn-e-Sina Trust.
4. Mohd Yunus: Member of the Central Jamaat-e-Islami;
Director-General, Majlis-e-Shura, Bangladesh Islami Bank; Director, Islami Social Welfare Association; Chairman, Muslim Business Society.
5. Mohd Kamruzzaman: Chief organizer of AI-Badr; Press Secretary, Jamaat-elslami; Editor,Sonar Bangla.
6. Ashraf Hussain: (Founder of the AI-Badr and head of the Mymensingh District Al-Badr, runs business in Dhaka.
7. Mohd Shamsul Huq, Member of the Central Majlis-e-Shura, (head of the Dhaka City AI-Badr), Jamaat-e-Islami.
8. Mustafa Showkat Imran, Disappeared immediately after liberation. One of the leaders of Dhaka City AI-Badr
9. Ashrafuzzaman Khan: Member of the Dhaka City AI-Badr High Command, and "Chief Executor" of the intellectuals; serving in Saudi Arabia.
10. A. S. M. Ruhul Quddus: One of the leaders of the Dhaka City AI-Badr; Member of the Majlis-e-Shura, Jamaat-e-Islami
11. Sardar Abdus Salam: Head of the Dhaka District AI-Badr;
Secretary, Training, Jamaat-e-Islami.
12. Khurram Jha Murad: Resident in London; Jamaat leader; active in organizing Jamaatis internationally.
13. Abdul Bari: Chief of the Jamalpur AI-Badr; Serving in Dhaka.
14. Abdul Hye Farooki: Chief of the Rajshahi District AI-Badr; runs business in Dubai.
15. Abdul Zahir Mohd Abu Neser: Chief of the Chittagong District AI-Badr; Personal Assistant at the Saudi Embassy in Dhaka and Librarian.
16. Matiur Rahman Khan: Chief of the Khulna District AI-Badr;
Serving in Jeddah.
17. Chowdhury Moinuddin: Operation in-charge in killing of the intellectuals; Special Editor of the London based weekly, Dawat; leader of the London-based Jamaat organisation, Dawatul Islam.
18. Nur Mohd Malik: One of the leaders of the Dhaka City AI-Badr; whereabouts unknown.
19. A. K. Mohd Ali: One of the leaders of the Dhaka City AI-Badr;
whereabouts unknown.
20. Mazharul Islam; Head of the Rajshahi District Al-Badr; Whereabouts unknown.

E. Collaborating Academics:

a. The Education Reform Committee Formed by Tikka Khan
1. Dr. Syed Sajjad Hussain (Vice-Chancellor Rajshahi University)
Former Professor, King Abdul Aziz University, Saudi Arabia; At present residing in Bangladesh.
2. Dr. Hasan Zaman, Dept of Political Science, DU
Died in Saudi Arabia.
3. Dr. Mohar Ali, Dept of History, DU, Serving in Saudi Arabia.
4. A. K. M. Abdur Rahman, Professor, Dept of Mathematics, DU.
5. Abdul Bari, Vice-Chancellor, RU; Chairman, University Grants Commission; Member, Governing Body of the Islamic Foundation.
6. Dr. Safiuddin Joardar: Deceased.
7. Dr. Makbul Hussain: Living a retired life.


b. Other Teachers of Dhaka University who were given compulsory leave after being charged with collaboration.
1. Begum Akhtar Imam, Provost, Rokeya Hall. Bengali Dept. Living a retired life in Dhaka.
2. Dr. Qazi Din Mohd: Dept of Arabic
1. Dr. Mohammad Mustafizur Rahman: Serving at Dhaka University.
2. Dr. Fatima Sadeque, Dept of Political Science
1. Dr. Golam Wahid Chowdhury: Owns a Garment Industry in Dhaka.
2. Dr. Rashiduzzaman: Employed in the U. S. A. (**)
3. Dr. AKM Shahidullah, Serving at Dhaka University.
4. AKM Jamaluddin Mustafa. Dept of Sociology, runs business in Dhaka.
5. Md. Afsaruddin, Dept of Psychology (DU)
6. Dr. Mir Fakhruzzaman, Dept of Physics Deceased.
7. Dr. Md. Shamsul Islam, Dept of Pharmacy (DU)
8. Dr. Abdul Jabbar, Dept of Statistics (DU)
9. Dr. Mahbubuddin Ahmed, doing business in London
2. Md. Obaidullah, Playwright; writes for Bangladesh Radio TV.


c Institute of Educational Research
1. Md. Habibullah, resident in Pakistan.
2. Abdul Kadir Miah, Employed at Dhaka University.
3. Dr. Shafia Khatun: Former minister and member Public service commission; employed at Dhaka University

d. Physical Education Center
1. Lt Col (Retd) Matiur Rahman, Dept of Journalism
2. Atiquzzaman Khan, Dept of Urdu and Persian, deceased.
3. Dr. Aftab Ahmed Siddqui, resident in Pakistan.
4. Dr. Fazlul Kader, Dept of Law, no information.
5. Nurul Momen, Dept of Islamic History, living in Dhaka.
6. Dr. SM Imamuddin, Dhaka University Caretaker, resident in Pakistan
7. SD Daliluddin, Dept of Botany (DU), deceased.
8. Mohd Mahbubul Alam Jalaluddin, Serving in Pakistan.


Several of those collaborating teachers were involved in the killing of the intellectuals. Many of their names were found in the diary of Ashrafuzzaman Khan, the Chief Executioner of the Al-Badr forces.


e. Institute of Educational Research
1.Nasir Ahmed, Upper Division Assistant, Chief Engineer Office
2.Painter Zahir Khan, Engineering Office
3.Peon Shahjahan, Salimullah Hall
4.Peon Mohammad Mustafa.


f. Teachers of Rajshahi University who were given compulsory leave after being charged with collaboration.
1. Dr. Abdul Bari, Vice-Chancellor, Chairman, University Grants Commission.
2. Dr. Golam Saqlain, Reader Professor, Dept of Bengali, Rajshahi University.
3. Azizul Huq, Associate Professor, Dept of Bengali, Rajshahi University.
4. Shaikh Ataur Rahman, Associate Professor, Dept of Bengali, Rajshahi University.
5. Abdur Rahim Joardar, University Registrar, retired

g. Teachers of Rajshahi University who were arrested on charges of collaboration.
1. Mukbul Hussain, Professor, Dept of Commerce (RU)
2. Ahmed Muhammad Patel, Chairman, Dept of Geography. Resident in Pakistan.
3. Solaiman Mondol, Chairman & Professor, Dept of Economics (RU).
4. Unman Bari Baghi, Associate Professor, Dept of Psychology.
Resident in Pakistan
5. Zillur Rahman, Reader, Dept of Law, Law Faculty, RU.
6. Kalim A Sasrami, Associate Professor, Dept of Languages.
(RU).

h. Those who were charged with collaboration and fled away after independence.
1. Ahmed Ullah Khan, Associate, Professor English Dept (RU).
2. Ebne Ahmed One of the deputy registrars, former registrar, Islami University, Kushtia.

They were all involved in killing and raping.

দৈনিক সংগ্রাম
১০ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৩ কার্তিক ১৩৭৮

লাহোরে আব্বাস আলী খানের মন্তব্য
ভারত আক্রমন করলে কোলকাতা ও দিল্লীতে ঈদের নামাজ পড়বো

লাহোর - পূর্ব পাকিস্তানের শিক্ষামন্ত্রী ও জাতীয় পরিষদের জামায়াতে ইসলামির নিয়মিত সদস্য জনাব আব্বাস আলী খান বলেন, আমরা আত্মম্ভরিতাপূর্ন দাবী করি না । কিন্তু আল্লাহতায়ালার উপর আমাদের পূর্ন ভরসা রয়েছে। ভারত যদি পাকিস্তানের উপর যুদ্ধ চাপিয়ে দেয় তবে আমরা কোলকাতা ও দিল্লীতে ঈদের নামাজ আদায় করবো ।

তিনি বলেন পাকিস্তান কোন বংশ বা সম্প্রদায়ের মালিকানা নয় বরং এটা উপমহাদেশীয় মুসলমানদের সন্মিলিত চেষ্টা সাধনার ফল । পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার জন্য হিন্দু ও ইংরেজদের সঙ্গে যুদ্ধ চলাকাছে একথা সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছিলো যে, এদেশ বাঙালী, পাঞ্জাবী, সিন্ধী, বেলুচী ও পাঠানদের নয় বরং ইসলামের জন্য অর্জন করা হবে ।
জনার আব্বাস আলী খান সামনাবাদে লাহোর জামায়াতে ইসলামী প্রদত্ত এক সম্বর্ধনা সভায় বক্তৃতা দিচ্ছিলেন ।
পূর্ব পাকিস্তানের রেজাকার বাহিনী ও আলবদর বাহিনীর প্রশংসা করে প্রাদেশিক শিক্ষামন্ত্রী বলেন , তারা প্রমান করে দিয়েছে যে মুসলমানরা মৃত্যুকে ভয় করে না বরং আল্লাহকে ভয় করে । ভারত যদি পাকিস্তানের উপর হামলা করে তবে তার ভূখন্ডেই যুদ্ধ সংঘঠিত হবে এবং আমরা কোলকাতা ও দিল্লীতে গিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করবো। পাকিস্তান টিকে থাকার জন্যই সৃষ্টি হয়েছে এবং পূর্ব পাকিস্তানের ঘটনাবলী তা প্রমান করে দিয়েছে ।

দৈনিক সংগ্রাম
১০ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৩ কার্তিক ১৩৭৮

প্রদেশব্যাপী বদর দিবস পালি
পাকিস্তানের বিরোধী চক্রের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর আহ্বান

রাজশাহী, - ঐতিহাসিক বদর দিবস উপলক্ষে গতকাল স্থানীয় ভূবন মোহন পার্কে আলবদর বাহিনীর বেসামরিক বিভাগের উদ্যোগে এক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় আলবদর বাহিনী প্রধান জনাব আবদুল হাই ফারুকী।
এক তারবার্তায় প্রকাশ, সভায় বক্তৃতা প্রসঙ্গে নবনির্বাচিত এম এন এ এডভোকেট আফাজউদ্দীন আহমদ এবং এম পি জনাব আয়েন উদ্দিন আহমদ বদর যুদ্ধের প্রেরনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে পাকিস্তান বিরোধী চক্রের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর জন্য জনগনের প্রতি আহ্বান জানান । তারা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ঘৃন্য প্রচারনা চালানোর জন্য ভারতের তীব্র নিন্দা করেন ।

সভাপতির ভাষনে জনাব আবদুল হাই ফারুকী জনগনকে পাকিস্তান ও ইসলামের দুশমনদের নির্মূল করার কাজে আলবদর সেনাদের সহায়তা করার আহ্বান জানান ।
সভায় গৃহীত প্রস্তাবে ভারতের ঘৃন্য প্রচারনার নিন্দা ও জনগনকে বদর সেনাদের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয় । এক প্রস্তাবে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থার ব্যর্থতার নিন্দা করা হয় এবং তা বদলিয়ে নয়া শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করার দাবী করা হয় ।

দৈনিক সংগ্রাম
১২ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৫ কার্তিক ১৩৭৮

বদর দিবসের ডাক
যুদ্ধবাজ ভারতের অশুভ পাঁয়তারাকে নস্যাৎ করো

কোটচাঁদপুর (যশোর)

- ইসলামী ছাত্রসংঘ ও জামিয়তে তালাবায়ে আরাবিয়া যৌথ উদ্যোগে স্থানীয় মডেল স্কুলে গত ৭ নভেম্বর বদর দিবসে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় । এতে সভাপতিত্ব করেন মাউলানা আবদুল হামিদ। বদরের যুদ্ধে মুসলমানদের প্রথম বিজয় এবং তার শিক্ষা ও তাৎপর্যের উপর বিষদ আলোচনা করেন মাষ্টার মতিয়ার রহমান, জনাব আফছার উদ্দীন ও মাউলানা ফজলুল হক প্রমুখ।
বক্তাগন বর্তমান পরিস্থিতিতে আলবদরের গুরুত্বপূর্ন ইতিহাসকে সামনে রেখে পাকিস্তানের প্রতিটি নাগরিককে যথাযথ শিক্ষা গ্রহন করার পরামর্শ দেন। সভায় যুদ্ধবাজ ভারতের অশুভ পাঁয়তারাকে নস্যাৎ করার জন্য জনগনের প্রতি আহ্বান জানানো হয়

চাঁদপুর

- ঐতিহাসিক বদর দিবসে কুমিল্লা জেলার চাঁদপুরে এক বিরাট ছাত্র জনজমায়েত অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় ইসলামী ছাত্রসংঘের কর্মীরা এর আয়োজন করে । চাঁদপুর কলেজ ময়দানে অনুষ্ঠিত এই জমায়েতে সভাপতিত্ব করেন ছাত্র সংঘ নেতা মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ।
বক্তৃতা করেন ছাত্রনেতা আবদুর রব, আবুল বাসার, নুরুল্লাহ প্রমুখ। জমায়েত শেষে জনাব হাবিবুল্লাহর নেতৃত্বে এক বিরাট মিছিল বের হয়। পূর্বান্হে সকাল ৮টায় স্থানীয় কর্মীরা বদর দিবসের অনুপ্রেরনায় ব্যাক্তিগতভাবে শপথ গ্রহন করে।

টাঙ্গাইল

- আমাদের নিজস্ব সংবাদ দাতা জানান , টাঙ্গাইলে যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে বদর দিবস পালিত হয়। এ উদ্দেশ্যে টাঙ্গাইল জেলা ইসলামী ছাত্রসংঘ ও জমিয়াতে তালাবায়ে আরাবিয়ার যৌথ উদ্যোগে এক আলোচনা সভা ও মিছিলের আয়োজন করা হয়।
জনাব আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন অধ্যাপক আবদুল খালেক, হাকীম হাবিবুর রহমান, অধ্যাপক হাবীবুর রহমান, আবদুল্লাহেল ওয়াছেক এডভোকেট, আবদুল জব্বার মোক্তার, এস এম রেজা, ডাক্তার আবদুল বাসেত ও অন্যান্য স্থানীয় নেতৃবৃন্দ । বিশিষ্ট জামায়াত কর্মী অধ্যাপক এম এম আবদুল কাদের আলবদরের উপর স্বরচিত কবিতা পাঠ করে শুনান।
নেতৃবৃন্দ বদর দিবসে মুসলিম জাতির আজকের দিনের দায়ীত্ব ও কর্তব্যের উপর ভিত্তি করে বক্তৃতা করেন। খোদাদ্রোহী শক্তি তথা হিন্দু সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে সদা জাগ্রত থাকার জন্য তারা জনগনের প্রতি আহ্বান জানান।
আলোচনা শেষে সমাবেত সুধীদের নিয়ে একটি মিছিল বের হয়। এতে 'আলবদর জিন্দাবাদ', 'পাকিস্তান জিন্দাবাদ', 'পাকিস্তানের উৎস কি লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ' প্রভৃতি শ্লোগান সহকারে মিছিলটি জামে মসজিদে গিয়ে শেষ হয়।

দৈনিক সংগ্রাম
১৩ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৬ কার্তিক ১৩৭৮

রাজস্ব মন্ত্রীর সাতক্ষীরা রেজাকার শিবির পরিদর্শন

সাতক্ষীরা,- পূর্ব পাকিস্তানের রাজস্ব মন্ত্রী মাওলানা এ কে এম ইউসুফ গত মঙ্গলবার সাতক্ষীরা রেজাকার শিবির পরিদর্শন করেন। মন্ত্রী রেজাকারদের সাথে কথাবার্তা বলেন এবং তাদের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন।
মাওলানা ইউসুফ সন্তোষ প্রকাশ করেন যে, ভারতীয় অনুচর ও অনুপ্রবেশকারীদের হীন চক্রান্ত নস্যাৎ করার ব্যাপারে সাতক্ষীরা মহকুমার রেজাকাররা মূল্যবান ভূমিকা পালন করেছে। তিনি রেজাকারদের আশ্বাস দেন যে, তাদের চাকুরীর অবস্থার উন্নয়ন করা হবে। ইসলামের পথ অনুসরন এবং আদর্শিক প্রেরণা সহকারে সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি রেজাকারদের প্রতি আহ্বান জানান

দৈনিক সংগ্রাম
১৪ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৭ কার্তিক ১৩৭৮

পাক সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় বদর বাহিনী গঠিত হয়েছে
--- মতিউর রহমান নিজামী

১৪ নভেম্বর ১৯৭১, বদর বাহিনীর গুণকীর্তন করে তৎকালীন পাকিস্তান ইসলামী ছাত্র সংঘের সভাপতি মতিইর রহমান নিজামী "বদর দিবস : পাকিস্তান ও আল-বদর" শীর্ষক শিরোনামে একটি সম্পাদকীয়তে উল্লেখ করে --- :

"বদর দিবস : পাকিস্তান ও আল-বদর"


বিগত দু'বছর থেকে পাকিস্তানের একটি তরুন কাফেলার ইসলামী পুনর্জাগরন আন্দোলনের ছাত্র প্রতিষ্ঠান পাকিস্তান ইসলামী ছাত্রসংঘ এই ঐতিহাসিক বদর দিবস পালনের সূচনা করেছে। যারা পাকিস্তানে বিপুল উৎসাহ উদ্দিপনার সাথে এই দিবস উদযাপিত হওয়ার পেছনে এই তরুন কাফেলার অবদান সবচেয়ে বেশি। হিন্দু বাহিনীর সংখ্যা শক্তি আমাদের তুলনায় পাঁচ গুন বেশি। তাছাড়া আধুনিক সমরাস্ত্রেও তারা পাকিস্তানের চেয়ে অনেক সুসজ্জিত। দূর্ভাগ্যবশত পাকিস্তানের কিছু মুনাফিক তাদের পক্ষ অবলম্বন করে ভেতর থেকে আমাদের দূর্বল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাদের মোকাবেলা করে তাদের সকল ষড়যন্ত্র বানচাল করেই পাকিস্তানের আদর্শ ও অস্তিত্ব রক্ষা করতে হবে ; শুধু পাকিস্তান রক্ষার আত্মরক্ষামূলক প্রচেষ্টা চালিয়েই এ পাকিস্তান কে রক্ষা করা যাবে না ।
... বদরের যুদ্ধ থেকে অনেক কিছুই আমাদের শিখবার আছে।
এই যুদ্ধের সৈনিকরা কেউ পেমাদার বা বেতনভুক্ত সৈনিক ছিলেন না। মুসলমানরা সবাই ছিলেন সৈনিক । তারা সবাই ছিলেন স্বতঃষ্ফুর্ত প্রেরনায় উদ্বুদ্ধ, ঈমানের তাগিদেই তারা লড়তে প্রস্তুত হয়েছিলেন বিরাট শক্তির মোকাবিলায়। বৈষয়িক কোন স্বার্থই ছিলো না তাদের সামনে। মরলে শহীদ বাঁচলে গাজী - এই ছিল তাদের বিশ্বাসের অঙ্গ। ঈমানের পরীক্ষায় তারা ছিলেন উত্তীর্ণ। সংখ্যার চেয়ে গুনের প্রাধান্য ছিলো সেখানে লক্ষনীয়। পারস্পরিক দ্বন্ধ কলহের লেশমাত্র ছিলো না তাদের মধ্যে। এক রসুলের নেতৃত্বে তারা সবাই ছিলেন সীসা ঢালা প্রাচীরের ন্যায় ঐক্যবদ্ধ। একমাত্র আল্লাহর সাহায্য ছিলো তাদের সম্বল। আর আল্লাহর সন্তোষ ছিলো তাদের কাম্য। আজকের কাফেরদের পর্যুদস্ত করতে হলে আমাদেরও অনুরূপ গুনাবলীর সমাবেশ অবশ্যই ঘটাতে হবে।
আমাদের পরম সৌভাগ্যই বলতে হবে, পাকসেনার সহযোগিতায় এদেশের ইসলাম প্রিয় তরুন ছাত্র সমাজ বদর যুদ্ধের স্মৃতিকে সামনে রেখে আল-বদর বাহিনী গঠন করেছে । বদর যুদ্ধে মুসলিম যোদ্ধাদের সংখ্যা ছিলো তিনশ তের জন। এই স্মৃতি অবলম্বন করে তারাও তিনশ তের জন যুবকের সমন্বয়ে এক একটি ইউনিট গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বদর যোদ্ধাদের সেই সব গুনাবলির কথা আমরা আলোচনা করেছি, আল বদরের তরুন মর্দে মুজাহিদ দের মধ্যে ইনশাল্লাহ সেই সব গুনাবলী আমরা দেখতে পাব।
পাকিস্তানের আদর্শ ও অস্তিত্ব রক্ষার দৃঢ় সংকল্প নিয়ে গঠিত আল-বদরের যুবকেরা এবারের বদর দিবসে নতুন করে শপথ নিয়েছে, যাতে তেজোদ্দীপ্ত কর্মীদের তৎপরতার ফলেই বদর দিবসের কর্মসূচি দেশবাসী তথা দুনিয়ার মুসলমানদের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে। ইনশাল্লাহ বদর যুদ্ধের বাস্তব স্মৃতিও তারা তুলে ধরতে সক্ষম হবে। আমাদের বিশ্বাস সেদিন যুবকেরা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপাশি দাড়িয়ে হিন্দু বাহিনীকে পর্যুদস্ত করে হিন্দুস্তানকে খতম করে সারা বিশ্বে ইসলামের পতাকা উড্ডীন করবে। আর সেদিনই পূরন হবে বিশ্ব মুসলমানের অন্তরের অপূর্ন আকাঙ্খা ।

দৈনিক সংগ্রাম
১৫ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৮ কার্তিক ১৩৭৮

জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠাই আমাদের লক্ষ্য
- গোলাম আযম

উপরোক্ত শিরোনামে গোলাম আযমের একটি বিবৃতি ১৫ নভেম্বর দৈনিক সংগ্রামে প্রকাশিত হয় । '৭০ এর ঐতিহাসিক নির্বাচনে পরাজিত গোলাম আযম প্রহসনমূলক উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জাতীয় পরিষদে নির্বাচিত হওয়ায় কিছু সংখ্যক পাকিস্তানী তাঁবেদার তাকে অভিনন্দিত করলে তার জবাবে তিনি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ।

--------------------------------------------------------------------------

কৃষক শ্রমিক পার্টির সভাপতি এ এস এম সোলায়মান করাচিতে এই দিনে উল্লেখ করেন -
"রাজাকাররা অত্যন্ত প্রশংসামূলক কাজ করছে এবং তাদের কে জাতীয় বীর বলা উচিত"

--------------------------------------------------------------------------

দুষ্কৃতিকারীদের চক্রান্ত বানচাল করার জন্য কার্যকরী ব্যবস্থা প্রহনের আহ্বান

গতকাল সোমবার ঢাকা জামিয়তে মজলিসে শুরার উদ্বোধনী অধিবেশনে গৃহীত এক প্রস্তাবে প্রাদেশিক রাজধানী ও প্রাদেশের অন্যান্য স্থানে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

প্রস্তাবে বলা হয় যে, মজলিসের সুচিন্তিত অভিমত এই যে, সশস্ত্র দুষ্কৃতিকারীদের হীন চক্রান্ত বানচালের জন্য কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন প্রয়োজন।
ঢাকা জামায়তে ইসলামীর প্রধান অধ্যাপক গোরাম সারওয়ার বলেন যে, দেশ ও জাতি চরম সংকটের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। ঢাকা জামায়াতে ইসলামীর নবনির্বাচিত মজলিসে শুরার উদ্বোধনী অধিবেশনে দেশের বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনাকালে তিনি উপরোক্ত মন্তব্য করেন ।
তিনি তার বক্তৃতায় শুরার সদস্যদেরকে পরিস্থিতির অনুধাবন এবং অবস্থা অনুসারে নীতি নির্ধারনের আবেদন জানান বলে এপিপির খবরে বলা হয়েছে।
অধ্যাপক সারওয়ার পূর্ব পাকিস্তানকে দাসত্বের নিগড়েআবদ্ধ করার ভারতীয় হীন চক্রান্তকে সংঘবদ্ধবাবে প্রতিরোধের জন্য পাকিস্তানের জনগনকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি আশা করেন যে, শত্রুদের সমূচিত শিক্ষাদানের জন্য পূর্ব পাকিস্তানীরা তাদের বিরুদ্ধে সাহসিকতার সাথে যুদ্ধ করবে।
মজলিস সাংগঠনিক কাজের ব্যাপক পর্যালোচনা করে এবং জামায়াতের কাজ সম্প্রসারনের জন্য বাস্তব কর্মসূচী গ্রহন করা হয়।
মজলিসের গৃহীত প্রস্তাবে রেজাকারদেরউন্নততর অস্ত্রশস্ত্র এবং দুষ্কৃতিকারীদের মোকাবেলার উদ্দেশ্যেতাদের কে পর্যাপ্ত ক্ষমতা দান করে রেজাকারদের সুসংগঠিত করার আহ্বান জানান হয় ।

প্রস্তবে বিনা উস্কানিতে পূর্ব পাকিস্তানের সীমান্ত এলাকায় হামলা পরিচালনার জন্য ব্রাক্ষ্মণ্য সাম্রাজ্যবাদের প্রতি কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারন করা হয়। প্রস্তাবে বলা হয় , সাম্রাজ্যবাদী ভারত এসব উস্কানীমূলক কার্যকলাপ থেকে বিরত না হলে পাকিস্তানের জনগন আমাদের সাহসী সশস্ত্র বাহিনীর সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভারতী যুদ্ধবাজদের অস্ত্রবলকে চিরতরে স্তব্ধ করে দেবে ।

দৈনিক সংগ্রাম
১৬ নভেম্বর ১৯৭১ / ২৯ কার্তিক ১৩৭৮

"পাকিস্তান আল্লাহর ঘর"
- মতিউর রহমান নিজামী

ইসলামরে ভেকধারী দৈনিক সংগ্রামে মতিউর রহমান নিজামী ১৬ নভেম্বর 'শব-ই-কদর একটি অনুভূতি' শীর্ষক শিরোনামে উপসম্পাদকীয় রচনা করেন। এই নিবন্ধে পবিত্র শব-ই-কদর এর তাৎপর্য ব্যাখ্যার চেয়ে মুক্তিযুদ্ধকে আঘাত করাই ছিল মূল লক্ষ্য। উপসম্পাদকীয়তে উল্লেখ করা হয় -

"খোদাবী বিধান বাস্তবায়নে সেই পবিত্র ভূমি পাকিস্তান আল্লাহর ঘর। আল্লাহর এই পূত পবিত্র ঘরে আঘাত হেনেছে খোদাদ্রোহী কাপুরুষের দল। এবারের শব-ই-কদরে সামগ্রিকভাবে ইসলাম ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পরিচালিত যাবতীয় হামলা প্রতিহত করে সত্যিকারের শান্তি ও কল্যান প্রতিষ্ঠার এই তীব্র অনুভূতি আমাদের মনে সত্যিই জাগবে কি ? "

আব্বাস আলী খান -

চাঁদপুর শান্তি কমিটির সভায় শান্তি কমিটি ও রাজাকারদের ভূয়সী প্রশংসা করে তিনি বলেন -
"পাকিস্তান চিরকাল অক্ষয় হয়ে টিকে থাকবেই । এর শত্রুদের সমূলে চিরতরে ধ্বংস করা আপনার দ্বায়ীত্ব। "


ইনসাফের দাবী
- গোলাম আযম

উপরোক্ত শিরোনামে প্রথম পাতায় গোলাম আযমের একটি বিবৃতি ১৬ নভেম্বর প্রকাশিত হয়। বিবৃতিতে বলা হয় -
"পূর্ব পাকিস্তানের জামাতের ইনসাফের দাবী হচ্ছে দেশের সংহতি ও অখন্ড স্বর্থে কোন একজন পূর্ব পাকিস্তানীকে অবশ্যই পাকিস্তানের প্রধান মন্ত্রীর পদ প্রদান করতে হবে ।"
ভূট্টোর পিপলস পার্টি এতদিন অভিযোগ করে আসছিল যে গোলাম আযম শেখ মুজিবের স্থান দখল করতে চায়, সেই অভিযোগের সত্যতা গোলাম আযমের উপরোক্ত বিবৃতিতে প্রমানিত হয় ।

দৈনিক সংগ্রাম
১৭ নভেম্বর ১৯৭১ / ৩০ কার্তিক ১৩৭৮


মাউলানা মওদুদী ঐক্যজোট পরিচালনার যোগ্যতা রাখেন
- দৈনিক সংগ্রাম

মুসলীম লীগ ও জামায়াতে ইসলামী সহ ৭ টি স্বাধীনতাবিরোধী রাজনৈতিক দল ী
সম্মিলিত কোয়ালিশন পার্টি গঠন করে সামরিক জান্তার অধীনে একটি তাঁবেদার মন্ত্রী পরিষদ গঠন করে । এই কোয়ালীশন পার্টির স্বাক্ষরিত ঘোষনা পত্রটির রচয়িতা ছিলেন বিতর্কিত ব্যাক্তি জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠাতা আমীর মাওলানা মওদুদীঅ মাওলানা মওদুদী এই ঘোষনাপত্রর দ্বায়ীত্বপ্রাপ্ত হওয়ায় দৈনিক সংগ্রাম ১৭ নভেম্বর স্বস্তি প্রকাশ করে "সম্মিলিত কোয়ালিশন পার্টি" শীর্ষক একটি সম্পাদকীয়তে উল্লেখ করে -
"..... সাতটি রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ সাধারন লক্ষ্য অর্জনসহ জাতয় পরিষদে একটি যুক্ত দলিল হিসেবে কাজ করার উদ্দেশ্যে গত সোমবার লাহোরে একটি ঘোষনাপত্র স্বাক্ষর করেছেন। ... এ ঐক্যজোট গঠনের অন্যতম পুরোধা মাওলানা মওদুদী ঐক্যজোটকে সঠিক লক্ষ্যে পরিচালিত করার প্রয়োজনীয় যোগ্যতা রাখেন, এ দৃঢ় বিশ্বাস আমাদের আছে। আমরা শুনে আনন্দিত যে, এ ঐক্যজোটের ফর্মুলা তৈরির জন্য তার ওপর দায়ীত্ব অর্পিত হয়েছিল। আমরা আশা করি , সে দায়ীত্ব তিনি যথাযথই পালন করেছেন। আমাদের বিশ্বাস, আমাদের জাতীয় নেতৃবৃন্দ যদি জাতীয় আদর্শ থেকে বিচ্যুত না হন তাহলে এ ঐক্য তার লক্ষ্য বাস্তবায়নে সমর্থ হবে।"


They used to send black letters to intellectuals.

শয়তান নির্মূল অভিযান



শয়তান
ব্রাক্ষ্মণ্যবাদী হিন্দুদের যে
সব পাচাটা কুকুর আর ভারতীয় ইন্দিরাবাদের দালাল নানা সুতানাতায় মুসলমানদের বৃহত্তম আবাসভূমি পাকিস্তানকে ধ্বংস করার ব্যর্থ চেষ্টা করছে তুমি তাদের অন্যতম। তোমার মনোভাব, চালচলন ও কাজকর্ম কোনটাই আমাদের অজানা নেই। অবিলম্বে হুঁশিয়ার হও এবং ভারতের পদলেহন থেকে বিরত হও, না হয় তোমার নিস্তার নেই। এই চিঠি পাওয়ার সাথে সাথে নির্মূল হওয়ার জন্য প্রস্তত হও ।
-- শনি


এ ধরনের চিঠিগুলো নভেম্বরের শেষের দিকে ঢাকার বুদ্ধিজীবীদের কাছে পাঠানো হত


Golam Azam was permitted the residenceship of Bangladesh in 1993.

Matiur Rahman Nizami and Salahuddin Kader Choudhury became minister in 2001.

And Taslima Nasrin wrote- This country is Golam Azam's Country.


All classes of Muslim people of Bangladesh demanded death punishment for Taslima Nasrin.

And they all welcomed Golam Azam with garland of flowers.

1994

After hiding in secret place for a two months, Taslima Nasrin left Bangladesh.

Because she was a criminal, her crime was demanding punishment of all Golam Azams from all area , from the area of Muslim majority, from the aria of religion, from the area of "manishness".

She denied that Golam Azam should be a citizen of Bangladesh, who was the most respected person from Pakistanized Bengali Muslims.

2008

Bangladesh canceled Taslima Nasrin's citizenship. They said- now she has got Swedish citizenship, so she is no longer a Bangladeshi.

Nobody asked that if instead of Taslima Nasrin, Humayun Ahmed would get Swedish citizenship, Bangladesh could cancel his Bangladeshi citizenship or not. Nobody asked that instead of her, if Khaleda Zia would get Swedish citizen, then Bangladesh could cancel her Bangladeshi citizenship or not.

2009

Awami League, the political party which first demand the independence and, then fought for it in 1971, has came in power.

Now they are planning to put those Razakars into trial. Golam Azams will be hanged now. Will they let Taslima Nasrin return to Bangladesh? Will Taslima Nasrin come back?


Answer


আমার জন্য অপেক্ষা করো মধুপুর নেত্রকোনা
অপেক্ষা করো জয়দেবপুরের চৌরাস্তা
আমি ফিরব। ফিরব ভিড়ে হট্টগোল, খরায় বন্যায়
অপেক্ষা করো চৌচালা ঘর, উঠোন, লেবুতলা, গোল্লাছুটের মাঠ
আমি ফিরব। পূর্ণিমায় গান গাইতে, দোলনায় দুলতে, ছিপ ফেলতে বাঁশবনের পুকুরে-
অপেক্ষা করো আফজাল হোসেন, খায়রুননেসা, অপেক্ষা করো ঈদুল আরা,
আমি ফিরব। ফিরব ভালবাসতে, হাসতে, জীবনের সুতোয় আবার স্বপ্ন গাঁথতে-
অপেক্ষা করো মতিঝিল, শান্তিনগর, অপেক্ষা করো ফেব্রুয়ারি বইমেলা আমি ফিরব।

মেঘ উড়ে যাচ্ছে পশ্চিম থেকে পুবে, তাকে কফোটা জল দিয়ে দিচ্ছি চোখের,
যেন গোলপুকুর পাড়ের বাড়ির টিনের চালে বৃষ্টি হয়ে ঝরে।

শীতের পাখিরা যাচ্ছে পশ্চিম থেকে পুবে, ওরা একটি করে পালক ফেলে আসবে
শাপলা পুকুরে, শীতলক্ষায়, বঙ্গোপসাগরে।
ব্রহ্মপুত্র শোনো, আমি ফিরব।

শোনো শালবন বিহার, মহাস্থানগড়, সীতাকু- পাহাড়-আমি ফিরব।
যদি মানুষ হয়ে না পারি, পাখি হয়েও ফিরব একদিন।

তসলিমা নাসরিন

I will come back even being a
bird

Tobu Firbo.mp3

1 মন্তব্য(গুলি):

  Rezowan

৮ সেপ্টেম্বর, ২০০৯ ৪:২৮ AM

Apnar genocide collection gulo khub rare. Thankx for shareing.